এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয় ২০২৩ । SEO ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট লিখার নিয়ম

বন্ধুরা, আপনি যদি একটি ব্লগ চালান, তাহলে আপনারও একই চিন্তা থাকবে কিভাবে আপনার ব্লগের ট্রাফিক বাড়ানো যায় এবং কিভাবে আপনার ব্লগকে গুগলের প্রথম পাতায় র‍্যাঙ্ক করা যায়।

ব্লগটিকে গুগলে প্রথম পৃষ্ঠায় স্থান পেতে, আপনাকে এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট লিখতে হবে।

আপনি যদি অনপেজ এসইও করতে জানেন, তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের পোস্টগুলো কিছু দিনের মধ্যেই গুগলে ভালো অবস্থানে র‌্যাঙ্কিং শুরু করবে।

সেজন্য আপনার ব্লগের উপরে SEO Friendly আর্টিকেল লিখতে আসা উচিত।

আজকে আমি আপনাদের এমন অনেক টিপস দেব, যদি আপনি সেগুলো অনুসরণ করেন তাহলে আপনার পোস্ট অবশ্যই গুগলে ভালো অবস্থানে স্থান পাবে।

একবার ওয়েবসাইটটি র‍্যাঙ্কিং শুরু করলে, তারপরে আপনার পোস্টে জৈব ট্র্যাফিকও আসতে শুরু করে।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয় ২০২৩

আসুন এখন বিস্তারিতভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার টিপস বুঝি।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয়

1) কীওয়ার্ড রিসার্চ-

বন্ধুরা, এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার আগে জানতে হবে কিভাবে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয়।

কারণ আপনি যদি এমন একটি কীওয়ার্ড টার্গেট করেন যা খুব প্রতিযোগিতামূলক, তাহলে আপনার পোস্টটি গুগলে র‌্যাঙ্ক করতে পারবে না।

এজন্য আপনার সবসময় কম প্রতিযোগিতার কীওয়ার্ড খুঁজে বের করা উচিত।

কীওয়ার্ড গবেষণার জন্য, আপনি আমাদের ব্লগের জন্য কীভাবে কীওয়ার্ড খুঁজে পাবেন তা পড়তে পারেন ।

2) প্রতিযোগীর পোস্ট বিশ্লেষণ করুন-

বন্ধুরা, একটি পোস্ট লেখার আগে, আপনাকে অবশ্যই প্রতিযোগীর পোস্টটি সর্বদা বিশ্লেষণ করতে হবে।

আপনার শব্দ গণনা জানা উচিত, শীর্ষ 10 এ উপস্থিত পোস্টের চিত্রগুলি।

আপনার প্রতিযোগী যতটা লিখেছে তার চেয়ে বেশি শব্দ আপনাকে লিখতে হবে এবং তার ছবির চেয়ে বেশি ছবি দিতে হবে।

আপনাকে প্রতিযোগী দ্বারা কভার করা তথ্যের চেয়ে পোস্টে আরও তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

3) ব্লগ পোস্ট শব্দ সংখ্যা-

বন্ধুরা, প্রবন্ধে কয়টি শব্দ লেখা আছে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার প্রতিটি পোস্টে কমপক্ষে 1000 শব্দ ব্যবহার করার চেষ্টা করা উচিত।

Google সর্বদা সেই পোস্টগুলিকে অগ্রাধিকার দেয় যাদের শব্দ সংখ্যা বেশি।

এজন্য আপনাকে কমপক্ষে 1000 শব্দের একটি নিবন্ধ লিখতে হবে।

4) কীওয়ার্ড বসানো-

বন্ধুরা, কীওয়ার্ড রিসার্চের পর কিওয়ার্ড প্লেসমেন্ট হল দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর।

আপনার পোস্টে আপনার কীওয়ার্ডগুলি কোথায় রাখা উচিত তা আপনার জানা উচিত।

বন্ধুরা, আমার মতে, আপনাকে অবশ্যই আপনার পোস্টের শিরোনামে, প্রথম অনুচ্ছেদে এবং শেষ অনুচ্ছেদে কীওয়ার্ড বসাতে হবে।

এই জায়গাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কীওয়ার্ড প্লেসমেন্ট করার সময় আপনার একটি বিষয় বিশেষ মনোযোগ দেওয়া উচিত তা হল আপনি স্বাভাবিকভাবে কীওয়ার্ড স্থাপন করেন।

আপনাকে কীওয়ার্ড স্টাফিং এড়াতে হবে।

5) পোস্টের শিরোনাম-

বন্ধুরা, পোস্টের শিরোনামে, আপনাকে লক্ষ্য করতে হবে যে আপনার প্রাথমিক কীওয়ার্ডটি অবশ্যই থাকতে হবে।

আপনাকে মনে রাখতে হবে আপনার শিরোনাম 50 থেকে 60 অক্ষরের হতে হবে এবং এর পিক্সেল যেন 570 এর বেশি না হয়।

বন্ধুরা, আপনার পোস্টের শিরোনামটি প্রথমে গুগলে উপস্থিত হয়। এ থেকে আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে Seo-এর জন্য পোস্টের শিরোনাম কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি যখনই আপনার পোস্ট তৈরি করবেন, তখন আপনাকে এর শিরোনাম তৈরিতে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে।

শিরোনাম তৈরি করার সময়, আপনাকে লক্ষ্য করতে হবে যে আপনার শিরোনামে কীওয়ার্ড থাকা উচিত এবং আপনার শিরোনামটি আকর্ষণীয় হওয়া উচিত।

আপনি যদি এই দুটি সূত্র ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার শিরোনাম Seo Friendly হয়ে যাবে এবং এতে ক্লিকও আসবে।

6) অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত লিঙ্ক-

অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক লিঙ্কিং SEO এর একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

অভ্যন্তরীণ লিঙ্কিংয়ের মাধ্যমে, আপনি আপনার পোস্টে অভ্যন্তরীণ ব্যাকলিংক দেন, যা আপনার পোস্টের র‌্যাঙ্কিংকে উন্নত করে।

তাই আমি আপনাকে পরামর্শ দেব যে আপনার অভ্যন্তরীণ লিঙ্কিংয়ের উপর আরও বেশি মনোযোগ দেওয়া উচিত।

আপনার লিঙ্কিং যত ভাল, আপনার র্যাঙ্কিং উন্নতি তত বেশি হবে।

7) আকর্ষণীয় মেটা বর্ণনা লিখুন -

মেটা বর্ণনা হল সেই অংশ যা Google এর অনুসন্ধান ফলাফলে দেখানো হয়।

আপনার মেটা বিবরণে আপনাকে অবশ্যই কীওয়ার্ড রাখতে হবে এবং আপনার মেটা বিবরণ 150 শব্দের বেশি হওয়া উচিত নয়।

আপনার মেটা বিবরণে 120 থেকে 150 শব্দ থাকা উচিত এবং 920 পিক্সেলের বেশি হওয়া উচিত নয়।

8) চিত্র Alt পাঠ্য-

ইমেজ অল্ট টেক্সটও একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর, আপনার ইমেজের Alt-এ আপনার মূল কীওয়ার্ড বসানো উচিত।

ইমেজে মূল কীওয়ার্ড বসানোর মাধ্যমে, আপনার ছবিও র‍্যাঙ্কিং শুরু করে।

যার কারণে আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বাড়তে থাকে।

9) Permalinks এ কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন -

Permalinks মানে আপনার পোস্টের URL। পার্মালিঙ্ক তৈরি করার সময়, আপনার 2টি বিষয়ে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া উচিত।

প্রথমে আপনাকে আপনার পারমালিঙ্কে প্রধান কীওয়ার্ড রাখতে হবে এবং দ্বিতীয়ত আপনাকে সাইজটি 75 অক্ষরের বেশি রাখতে হবে না।

এই 2টি জিনিস পার্মালিংকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

10) কীওয়ার্ড বোল্ড করুন-

বন্ধুরা, আমি আপনাকে বলেছি আপনি ব্লগ পোস্টে কীওয়ার্ডগুলি কোথায় রেখেছেন।

তবে বন্ধুরা, আপনাকে অবশ্যই একটি বিষয়ের যত্ন নিতে হবে যে আপনাকে অবশ্যই আপনার কীওয়ার্ডকে সাহসী বা হাইলাইট করতে হবে।

যখন গুগল বট আপনার ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স করতে আসে, তখন এটি আপনার হাইলাইট করা কীওয়ার্ড দেখে পোস্টটি বুঝবে এবং আপনার পোস্টটিকে নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের উপর র‌্যাঙ্ক করবে।

11) অনন্য চিত্র তৈরি করুন-

বন্ধুরা, ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিংয়ের জন্য ছবিগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আপনাকে সবসময় কপিরাইট করা ছবি এড়িয়ে চলতে হবে, কারণ আপনি যদি আপনার পোস্টে অন্য কারো ছবি ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার পোস্ট কখনই গুগলে র‌্যাঙ্ক করবে না।

সেজন্য আপনি সবসময় নিজের ইমেজ তৈরি এবং ব্যবহার করা উচিত।

12) উচ্চ গুণমান সহ অনন্য নিবন্ধ-

বন্ধুরা, নিবন্ধটি কত অনন্য এবং এটি কতটা মূল্য প্রদান করছে।

আপনি যত বেশি অনন্য সামগ্রী তৈরি করবেন, আপনার ওয়েবসাইটটি তত দ্রুত র‌্যাঙ্ক করবে।

অনন্য হওয়ার পাশাপাশি, আপনাকে আপনার পোস্টের ভিজিটরকে মূল্য দিতে হবে।

আপনি যদি কপি করে কন্টেন্ট লেখেন, তাহলে আপনার পোস্ট কখনই গুগলে র‍্যাঙ্ক করতে পারবে না।

13) ছোট অনুচ্ছেদ লিখুন-

বন্ধুরা, আপনার সবসময় ছোট অনুচ্ছেদ লিখতে হবে কারণ ব্যবহারকারী যখন আপনার পোস্ট পড়ে এবং আপনার পোস্টের দৈর্ঘ্য অনেক বেশি হয়, তখন ব্যবহারকারী দ্রুত বিরক্ত হয়ে যায়।

ফলস্বরূপ, সে পোস্ট না পড়েই চলে যায়, যার কারণে আপনার বাউন্স রেট বেড়ে যায়।

তাই আপনার উচিত ছোট অনুচ্ছেদ রাখা যাতে ব্যবহারকারীর আগ্রহ পোস্টে থাকে।

14) LSI কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন-

Lsi কীওয়ার্ড মানে প্রধান কীওয়ার্ডের প্রতিশব্দ।

উদাহরণস্বরূপ, ওয়ার্কআউটের অনুরূপ শব্দটি হল ব্যায়াম।

আপনার পোস্টে প্রধান কীওয়ার্ডের সাথে প্রতিশব্দ ব্যবহার করা উচিত।

এটির সাথে, আপনার পোস্ট অন্যান্য কীওয়ার্ডগুলিতেও র‌্যাঙ্কিং শুরু করে।

15) পোস্ট আপডেট 

এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। আপনি যখন আপনার পোস্ট ক্রমাগত আপডেট করেন, তখন আপনার পোস্টের সতেজতা বজায় থাকে।

Google দ্রুত সেই পোস্টটিকে র‍্যাঙ্ক করে যা নতুন এবং সম্পূর্ণ বিষয়বস্তু প্রদান করে।

সেজন্য আপনাকে সময় সময় আপনার পোস্ট আপডেট করতে হবে।

16) সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ারিং

পোস্টটি লেখার পরে, আপনার এটি কমপক্ষে 10টি ওয়েবসাইটে শেয়ার করা উচিত।

শেয়ার করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল মানুষ সোশ্যাল সাইট থেকে আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করবে।

যার কারণে সামাজিক সংকেতের বার্তা গুগলে যাবে এবং আপনার ওয়েবসাইটের কর্তৃত্ব বাড়বে।

অবশেষে আপনার ওয়েবসাইটের সব পোস্টের র‍্যাঙ্কিং শুরু হবে।

17) শিরোনাম এবং উপশিরোনাম ব্যবহার করুন -

বন্ধুরা, আপনি আপনার পোস্টের ভিতরে শিরোনাম এবং উপশিরোনাম ভালভাবে ব্যবহার করুন।

শিরোনাম এবং উপশিরোনাম Google-কে পোস্টটি বুঝতে সাহায্য করে।

18) নিবন্ধটি ব্যাখ্যা করার জন্য ছবি এবং ভিডিও ব্যবহার করুন -

বন্ধুরা, নিবন্ধটি যত বেশি আকর্ষণীয় হবে, ব্যবহারকারীর আগ্রহ তত বেশি থাকবে।

এর জন্য, আপনাকে আপনার নিবন্ধের ভিতরে সঠিকভাবে ছবি এবং ভিডিও ব্যবহার করতে হবে।

এটি আপনার বাউন্স রেটকে উন্নত করবে যা আপনার নিবন্ধের এসইওর জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

19) ব্যাকরণের ভুল করবেন না -

বন্ধুরা, এটি আপনার ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি আপনার নিবন্ধে ব্যাকরণ ভুল করেন, তাহলে এটি ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা নষ্ট করে।

Google কখনই সেই নিবন্ধটিকে র‌্যাঙ্কিং দেয় না যাতে ব্যাকরণের ভুল থাকে।

এজন্য নিবন্ধটি লেখার সময় আপনাকে এই বিষয়ে আরও মনোযোগ দিতে হবে। নিবন্ধটি লেখার পরে, আপনার নিবন্ধটি একবার পড়ুন।

গ্রামার মিসটেক যাই হোক না কেন, তা ঠিক করার পরই গুগলে প্রকাশ করুন।

20) সংখ্যা এবং পয়েন্ট ব্যবহার করুন -

বন্ধুরা, আপনি যখনই একটি নিবন্ধ লিখবেন, সেই সময় আপনাকে আপনার নিবন্ধটি খুব সহজ এবং সহজ করতে হবে।

আপনার নিবন্ধটি যত সহজ হবে, ব্যবহারকারী তত বেশি বুঝতে পারবেন। নিবন্ধটিকে সহজ করতে আপনি নম্বর এবং পয়েন্ট ব্যবহার করতে পারেন।

21) ব্যবহারকারীর অভিপ্রায় বুঝুন -

বন্ধুরা, একটি নিবন্ধ লেখার আগে, আপনাকে এর ব্যবহারকারীর উদ্দেশ্য বুঝতে হবে।

ব্যবহারকারীর অভিপ্রায় মানে ব্যবহারকারী কীভাবে সেই নিবন্ধটি গুগলে অনুসন্ধান করবে এবং নিবন্ধের ভিতরে তার কী প্রয়োজন।

আপনি যখনই একটি নিবন্ধ লিখবেন, তার আগে আপনাকে এই বিষয়টিতে ফোকাস করতে হবে। তার পরই প্রবন্ধ লিখতে হবে।

22) পোস্টের বিষয়বস্তু Seo বন্ধুত্বপূর্ণ করুন -

বন্ধুরা, আপনাকে আপনার পোস্টের বিষয়বস্তু seo বন্ধুত্বপূর্ণ করতে হবে।

এর মানে হল যে আপনাকে আপনার পোস্টের দৈর্ঘ্য থেকে শুরু করে কীওয়ার্ড প্লেসমেন্ট এবং শব্দের পছন্দ সব কিছুতেই ভালোভাবে মনোযোগ দিতে হবে।

এই সমস্ত গবেষণা করার পরে, আপনাকে আপনার সামগ্রী লিখতে হবে।

23) নিবন্ধের কাঠামো তৈরি করুন -

বন্ধুরা, আপনাকে অবশ্যই আপনার নিবন্ধের একটি কাঠামো তৈরি করতে হবে যাতে Google বট সহজেই আপনার নিবন্ধটি বুঝতে পারে।

স্ট্রাকচার তৈরি করার সময়, আপনাকে শিরোনাম, বর্ণনা, শিরোনাম এবং উপশিরোনামগুলিতে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে।

24) প্রধান কীওয়ার্ড তির্যক করুন -

বন্ধুরা, এটি একটি ঐতিহ্যবাহী পদ্ধতি যা বেশিরভাগ ব্লগাররা অনুসরণ করে।

আপনার প্রধান কীওয়ার্ডকে বোল্ড এবং তির্যক করা Google বটগুলির জন্য আপনার পোস্ট বোঝার জন্য এটিকে আরও সহজ করে তোলে।

এটির সাহায্যে, Google আপনার পোস্টের মূল কীওয়ার্ড বুঝতে সক্ষম হয় এবং আপনি সহজেই আপনার পোস্টকে র‌্যাঙ্ক করতে পারেন।

25) প্রথম অনুচ্ছেদে প্রধান কীওয়ার্ড ব্যবহার করতে ভুলবেন না -

বন্ধুরা, Google বটগুলিকে আপনার পোস্ট সহজে বোঝার জন্য কীওয়ার্ড প্লেসমেন্ট একটি বিশাল ভূমিকা পালন করে।

আপনার পোস্টে সঠিক জায়গায় কীওয়ার্ড লিখতে হবে। আপনার মূল কীওয়ার্ডের মতো আপনার পোস্টের প্রথম অনুচ্ছেদে থাকা উচিত।

এটি Google-এর পক্ষে আপনার পোস্টের থিম বুঝতে খুব সহজ করে তোলে এবং আপনি সহজেই Google-এ র‍্যাঙ্কিং পান৷

26) বোল্ড এবং ইটালিক সম্পর্কিত কীওয়ার্ড -

বন্ধুরা, আপনি যদি আপনার ব্লগ পোস্টটিকে সম্পর্কিত কীওয়ার্ডগুলিতেও র‌্যাঙ্ক করতে চান, তাহলে আপনাকে আপনার প্রতিশব্দ কীওয়ার্ডটি সঠিক জায়গায় রাখতে হবে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আপনাকে আপনার কীওয়ার্ডটিকে বোল্ড, হাইলাইট এবং ইটালিক করতে হবে।

27) মানসম্পন্ন ওয়েবসাইট থেকে আউটবাউন্ড লিঙ্ক তৈরি করুন –

বন্ধুরা, গুগল আপনার ওয়েবসাইটের অনেকগুলো বিষয় বিশ্লেষণ করেই আপনার র‌্যাঙ্কিং প্রদান করে।

এই কারণগুলির মধ্যে একটি হল আউটবাউন্ড লিঙ্ক এবং বন্ধুদের আউটবাউন্ড লিঙ্ক তৈরি করার সময়, আপনাকে মনোযোগ দিতে হবে যে আপনি শুধুমাত্র গুণমানের ওয়েবসাইট থেকে আউটবাউন্ড লিঙ্ক তৈরি করেন।

এটি আপনার ওয়েবসাইটের কর্তৃত্ব বাড়ায় এবং এটি গুগলে র‌্যাঙ্ক বাড়াতে সাহায্য করে।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার নিয়ম

বন্ধুরা, আজকের নিবন্ধে, আমি আপনাদের সাথে 27টি সেরা টিপস শেয়ার করেছি।

আজ থেকে আমি যে টিপসগুলো বলবো তা যদি আপনি অনুসরণ করেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিং খুব দ্রুত উন্নত হবে।

যার কারণে আপনার ওয়েবসাইটের কর্তৃত্ব এবং ট্রাফিক উভয়ই বৃদ্ধি পাবে।

আশা করি আপনি আজকের পোস্টটি পছন্দ করেছেন কিভাবে ব্লগে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে হয় ।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয় সে সম্পর্কিত প্রশ্ন ও উত্তর –

প্রশ্ন 1) কিভাবে একটি ব্লগ পোস্ট লিখতে হয়?

উত্তর-বন্ধুরা, একটি ব্লগ পোস্ট লিখতে আপনার অবশ্যই ব্লগার এবং ওয়ার্ডপ্রেসের মতো একটি প্ল্যাটফর্ম থাকতে হবে।

এর পরে আপনি কোন বিষয়ে লিখতে পারবেন তা নির্ধারণ করতে পারেন এবং এর পরে আপনাকে কীওয়ার্ড গবেষণা করতে হবে।

সবশেষে, আপনাকে অনপেজ এসইওর কথা মাথায় রেখে কন্টেন্ট লিখতে হবে।

প্রশ্ন 2) কিভাবে একটি ভাল ব্লগ লিখতে হয়?

উত্তর - একটি ভালো ব্লগ পোস্ট লিখতে হলে আপনাকে ৩টি বিষয়ের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে। এই জিনিসগুলি হল কীওয়ার্ড রিসার্চ, কোয়ালিটি কন্টেন্ট এবং অনপেজ এসইও।

প্রশ্ন 3) কিভাবে একটি নিবন্ধ তৈরি করতে হয়?

উত্তর - একটি নিবন্ধ লিখতে, আপনাকে কিছু বিষয়ে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। যেমন - ভূমিকা, শরীর এবং উপসংহার।

আপনাকে নিবন্ধের ভিতরে ছোট অনুচ্ছেদ ব্যবহার করতে হবে।

প্রশ্ন 4) একটি ব্লগ পোস্টের জন্য কি এসইও বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়া বাধ্যতামূলক?

উত্তর - হ্যাঁ, একটি SEO বন্ধুত্বপূর্ণ ব্লগ পোস্ট গুগলে খুব দ্রুত র‍্যাঙ্ক করে।



Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url